রাজশাহী, বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ৯ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
◈ ধূরইল ইসলামিয়া বালিকা দাখিল মাদ্রাসার বিনম্র শ্রদ্ধায় পালিত অমর একুশে ◈ একুশের প্রথম প্রহরে ভাষা শহীদের প্রতি রাজশাহী বরেন্দ্র প্রেসক্লাবের শ্রদ্ধা ◈ রাজশাহীতে অজ্ঞাত ভাইরাসে দুই শিশুর মৃত্যু : আইইডিসিআরের পরিদর্শন, বাবা-মাকে ছাড়পত্র ◈ দিঘলিয়া থানায় ওপেন হাউজ ডে অনুষ্ঠিত ◈ হাতীবান্ধায় পরপর তিন দিনে পাশাপাশি তিনটি খড়ের গাদায় আগুন ◈ সিরাজগঞ্জে বিএসটিআইয়ের অভিযানে ফ্লাওয়ার মিলকে মামলা ও জরিমানা ◈ ট্রাকের পিছনের চাকায় পৃষ্ঠ হয়ে মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যু ◈ তানোরে পুকুর খননের মাটিতে পাকা রাস্তা নষ্ট এলাকায় উওেজনা ◈ রাজশাহীর ডিবি পুলিশ কর্তৃক ২০০ গ্রাম হেরোইন-সহ গ্রেফতার: ৩ ◈ নওগাঁর ডলফিন এনজিও‘র মালিক আব্দুর রাজ্জাকসহ ০৬ জন কে যৌথ অভিযানে আটক

একই বাতি শাহ মখদুম বিমানবন্দর কিনেছে ৪৬ লাখে, রাসিক ৩২ লাখ টাকায়!

প্রকাশিত : 10:01 PM, 1 April 2021 Thursday

বাংলার সকাল নিউজ ডেস্কঃ

অনলাইন ডেস্ক:: প্রতি ইউনিট অটো লিফটিং হাই মাস পোল (বিশেষ ধরনের বাতি সম্বলিত খুঁটি)-এর প্রতিটি ৪৫ লাখ ৭০ হাজার ২ টাকায় স্থাপন করেছে রাজশাহীর শাহ্ মখদুম বিমানবন্দর। সেই একই ধরনের প্রতিটি খুঁটি বসাতে রাজশাহী সিটি করপোরেশন (রাসিক) খরচ করেছে ৩২ লাখ ৫০ হাজার টাকা। অর্থাৎ প্রতি ইউনিট পোলে রাসিকের চেয়ে ১৩ লাখ টাকা বেশি খরচ দেখিয়েছে শাহ মখদুম বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ।যেখানে রাসিকের এই ৩২ লাখ ৫০ হাজার টাকার দরপত্রকে বাজার দরের তুলনায় ‘অস্বাভাবিক’ উল্লেখ করে কোটি টাকা দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে, সেখানে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের ১৩ লাখ টাকা বেশি খরচের বিষয়টি পড়েছে আরও বড় প্রশ্নের মুখে।রাসিকের ‘অস্বাভাবিক’ দরপত্রের অভিযোগটি আমলে নিয়ে ৫ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন করপোরেশনের মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান (লিটন)। সেই কমিটির দেয়া প্রতিবেদনে একই লাইট শাহ্ মখদুম বিমানবন্দর ও রাসিকের দরপত্রে ১৩ লাখ টাকার পার্থক্যের সত্যতা উঠে এসেছে।‘হাই মাস্ট লাইট টেন্ডারসহ অন্যান্য কাজে কোটি কোটি টাকা দুর্নীতির অভিযোগ’ সংক্রান্ত প্রতিবেদনে একটি অভিযোগ হলো, রাসিকের বিদ্যুৎ বিভাগ দেশের কোনো বিভাগ বা অফিসের রেট স্কেজিউল অনুসরণ অথবা কোনো কোম্পানির একক দর অথবা বাজার দর অনুসরণ না করে নিজের খেয়াল খুশিমতো এবং ঠিকাদারের চাহিদা অনুযায়ী কাজটির প্রাক্কলন করেছে। বর্তমান বাজার দর ও রেট স্কেজিউলের দরের চেয়ে অফিসিয়াল প্রাক্কলন পাহাড়সম বেশি।এ বিষয়ে প্রতিবেদনে তদন্ত কমিটি পর্যবেক্ষণে বলেছে, ‘আলোচ্য দরপত্র দলিল সংক্রান্ত নথি পর্যালোচনায় দেখা যায়, পিডব্লিউডি (গণপূর্ত অধিদফতর), এলজিইডি (স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতর) বা অন্য কোনো প্রতিষ্ঠানের রেট স্কেজিউল বইয়ে হাই মাস পোলের রেট নেই। এক্ষেত্রে রাজশাহী শাহ্ মখদুম এয়ারপোর্টে ২০ মিটার অটো লিফটিং হাই মাস পোল স্থাপনে দর পাওয়া যায় ৪৫ লাখ ৭০ হাজার ২ টাকা। রাসিকে অটো লিফটিং হাই মাস পোল স্থাপনের প্রাক্কলিত দর ৩২ লাখ ৫০ হাজার টাকা। এই দুই দর তুলনা করলে দেখা যায়, রাসিকের দরটি অপেক্ষাকৃত অনেক কম।এছাড়া আরও দেখা যায়, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান প্রাইস স্কেজিউলে আলোচ্য অটো লিফটিং হাই মাস পোলের স্থাপনসহ একক দর উদ্ধৃত করেছেন ৩১ লাখ ৪৭ হাজার টাকা, যা সিটি করপোরেশনের দরের চেয়ে ৩ দশমিক ১৭ শতাংশ কম।’গত বছরের ২৩ সেপ্টেম্বর বিষয়টি তদন্ত করার জন্য রাসিক মেয়রের নির্দেশে যে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়, তাদের আহ্বায়ক রাসিক প্রধান প্রকৌশলী মো. খায়রুল বাশার। কমিটির সদস্যরা হলেন নেসকোর রাজশাহীর নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মাহমুদুল হাসান, রাজশাহীর গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. কামরুজ্জামান, রুয়েটের তড়িৎকৌশল বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. মামুনুর রশিদ এবং রাসিকের বিএওর সদস্য সচিব মো. শফিকুল ইসলাম খান।এ বিষয়ে মো. কামরুজ্জামান বলেন, ‘এই আইটেমটা (অটো লিফটিং হাই মাস পোল) বাংলাদেশে আনকমন (অপ্রচলিত)। আমরা বিশ্লেষণ করেছি যে, আরও পারিপার্শ্বিক যেসব জায়গায় এটা বসানো হয়েছে, যেমন রাজশাহীর শাহ্ মখদুম বিমানবন্দরে, ঢাকারও আরেকটি জায়গায়, সেই জায়গাগুলোর সঙ্গে তুলনা করেছি। অন্যান্য জায়গায় আমি দেখেছি, সেগুলোর তুলনায় রাজশাহী সিটি করপোরেশন কম দরে কিনেছে।’রাসিকের চেয়ে শাহ্ মখদুম বেশি দরের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘ওরা (শাহ্ মখদুম বিমানবন্দর) বেশি দরে কিনছে কীভাবে সেটা আমরা ওইভাবে বিবেচনায় নেইনি। ওদের অ্যানালাইসিস আমরা দেখি নাই। এখানকার (রাসিক) বিশ্লেষণে বেসিক রেট, তার সঙ্গে বিভিন্ন ভ্যাট, ইনকাম ট্যাক্স, কাস্টম ডিউটি এগুলো আলাদা করে দেখানো ছিল। এগুলো এখানকার জন্য পেয়েছি আমরা। ওখানকারগুলো আমরা ওইভাবে আসলে দেখতে পাইনি। মানে ওদের কাছ থেকে আমরা ডকুমেন্টগুলো আমরা ওইভাবে নেইনি। শুধু রেটটা নেয়া হয়েছে। এখন শাহ্ মখদুম বিমানবন্দরে প্রফিট মার্জিন কত রাখা হয়েছিল, কম না বেশি সেগুলো আমরা দেখিনি। শুধু কত টাকায় কাজটা আহ্বান করা হয়েছে, সেগুলো নিয়েছি।’

 

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক বাংলার সকাল'কে জানাতে ই-মেইল করুন- banglarsakal24@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক বাংলার সকাল'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২৪ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক বাংলার সকাল | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, ডেভোলপ ও ডিজাইন: DONET IT